টেকনাফে র‍্যাবের সাথে বন্দুকযুদ্ধে শীর্ষ ডাকাত জকির গ্রুপের সদস্য নিহত

গিয়াসউদ্দিন ভুলু, টেকনাফ
  • প্রকাশিত সময় : সোমবার, ২ মার্চ, ২০২০

টেকনাফে গহীন পাহাড়ে র‍্যাবের সাথে গোলাগুলির ঘটনায় শীর্ষ ডাকাত জকির গ্রুপের ৭ সদস্য নিহত হয়েছে।
তথ্য সুত্রে জানাযায়,২ মার্চ গভীর রাতে গোপন সংবাদের মাধ্যমে র‍্যাব জাতে পারে হ্নীলা ইউনিয়নের অন্তর্গত জাদীমুড়া জুম্মাপাড়া ২৬/২৭ নং রোহিঙ্গা ক্যাম্প সংলগ্ন গহীন পাহাড়ী এলাকায় শীর্ষ রোহিঙ্গা ডাকাত জকিরসহ ডাকাত দলের একটি সংঘবদ্ধ চক্র অপরাধ সংঘটিত করার জন্য জাদীমুড়া জুম্মাপাড়া পাহাড়ী এলাকায় অবস্থান নিয়েছে।
উক্ত সংবাদের তথ্য অনুযায়ী ২ মার্চ (সোমবার) ভোর রাতের দিকে র‍্যাব-১৫ সদস্যদের একটি চৌকষ দল অভিযানে যায়।

ডাকাত দলের সদস্যরা উপস্থিতি টের পেয়ে র‍্যাব সদস্যদের লক্ষ্য করে এলোপাতাড়ী গুলিবর্ষন শুরু করে। গুলিবিনিময়ের এই ঘটনা ভোর রাত থেকে সকাল ৫টা পর্যন্ত চলতে থাকে।

উভয় পক্ষের গোলাগুলি থেমে যাওয়ার পর ঘটনাস্থলে গুলিবিদ্ধ অবস্থায় ডাকাত দলের ৭ সদস্যকে পড়ে থাকতে দেখে র‍্যাব সদস্যরা তাদের উদ্ধার করে হাসপাতালে নিয়ে গেলে কর্তব্যরত ডাক্তার সবাইকে মৃত ঘোষনা করে।


নিহতরা সবাই শীর্ষ রোহিঙ্গা ডাকাত জকির গ্রুপের সক্রিয় সদস্য বলে জানায় র‍্যাব।
এদিকে ঘটনাস্থল তল্লাশী দেশী-বিদেশী ১০টি অস্ত্র,২৫ রাউন্ড গুলি উদ্ধার করা হয়েছে।

ঘটনার সত্যতা নিশ্চিত করে র‍্যাব-১৫ টেকনাফ কোম্পানী কমান্ডার লে.মির্জা শাহেদ মাহতাব জানান, শীর্ষ রোহিঙ্গা ডাকাত জকির গ্রুপের সাথে র‍্যাবের গোলাগুলির ঘটনায় ডাকাত দলের ৭ সদস্য মারা গেছে এবং ঘটনাস্থল থেকে উদ্ধার করা হয়েছে। দেশীয় তৈরী ৭টি অস্ত্র,৩টি বিদেশী পিস্তল,১২ রাউন্ড পিস্তলের গুলি,১৩ রাউন্ড কার্তুজ।

তিনি আরো জানান টেকনাফে রোহিঙ্গা ক্যাম্প সংলগ্ন পাহাড় গুলোতে লুকিয়ে থাকা শীর্ষ ডাকাত গ্রুপের সদস্যদের নির্মুল করার জন্য র‍্যাবের চলমান এই সাঁড়াশী অভিযান অব্যাহত থাকবে।

সংবাদটি আপনার ফেইসবুকে শেয়ার করুন...

এই ক্যাটাগরীর অন্যান্য সংবাদ :

কক্সবাজারে মরণব্যাধি করোনা ভাইরাসের কারনে বাজারে হঠাৎ করেই হ্যান্ড স্যানিটাইজারের সঙ্কট দেখা দিয়েছে। ফলে মানবিক বিবেচনায় নিজেদের টাকায় হ্যান্ড স্যানিটাইজার তৈরীর পর তা সাধারণ জনগনের মাঝে বিনামূল্যে বিতরণ করে বিরল দৃষ্টান্ত দেখিয়েছেন ছাত্রলীগের নেতাকর্মীরা। কক্সবাজার জেলা ছাত্রলীগের উপ-দপ্তর সম্পাদক ও ইন্টারন্যাশনাল ইউনিভার্সিটি ছাত্রলীগের সভাপতি মইন উদ্দিনের নেতৃত্বে একদল ছাত্রলীগ কর্মীর এমন মহতি উদ্যোগ সবার মাঝে প্রশংসা কুড়িয়েছে।
এর আগে করোনা ভাইরাসের সংক্রমণ থেকে বাঁচার জন্য সাধারণ মানুষের মাঝে সচেতনতা তৈরী সরূপ হাতকে জীবাণুমুক্ত রাখতে সারাদেশে হ্যান্ড স্যানিটাইজার তৈরী এবং বিতরণের নির্দেশ দেয় কেন্দ্রীয় ছাত্রলীগ। এরপর নিজেদের তত্বাবধানে হ্যান্ড স্যানিটাইজার তৈরির কাজ শুরু করে ছাত্রলীগ নেতাকর্মীরা।
রোববার বিকেল থেকে কক্সবাজারে হ্যান্ড স্যানিটাইজার তৈরির কাজে নামে ছাত্রলীগ। তারা ১ম ধাপে তিন শ’ বোতল স্যানিটাইজার তৈরি করে। পরবর্তীতে ছোট বড় আরো ২শ’ বোতল স্যানিটাইজার বানানো হয়। পর্যায়ক্রমে প্রয়োজন সাপেক্ষে আরো ৫শ’ স্যানিটাইজার এবং মাস্ক বানিয়ে সম্পন্ন মানবিক বিবেচনায় তা সাধারণ মানুষের মাঝে বিনামূল্যে বিতরণ করা হবে বলে জানিয়েছেন ছাত্রলীগ নেতা মইন। সমসাময়িক সঙ্কটময় মুহুর্তে ব্যতিক্রমী এমন মহৎ কাজের অন্যতম প্রধান উদ্যোক্তা জেলা ছাত্রলীগের উপ-দপ্তর সম্পাদক ও ইন্টারন্যাশনাল ইউনিভার্সিটি ছাত্রলীগের সভাপতি মইন উদ্দীন জানায়, ফার্মাসির কয়েকজন শিক্ষার্থীর সহযোগিতায় হ্যান্ড স্যানিটাইজার তৈরির উদ্যোগ নেন তারা। নিজেদের তৈরিকৃত এসব স্যানিটাইজার বিনামূল্যে সাধারণ মানুষের মাঝে বিতরণ করছেন। সবগুলো স্যানিটাইজার স্বাস্থ্যসম্মতভাবে তৈরী হচ্ছে বলেও জানান মইন উদ্দিন। এদিকে প্রাণঘাতি করোনা ভাইরাস নিয়ে দেশের এই সংকটময় মুহুর্তে একজন ছাত্রলীগ নেতার এমন উদারতা শুধু কক্সবাজার নয়, সারাদেশের ছাত্র রাজনীতির ইতিহাসে অনন্য উচ্চতার মাইল ফলক হয়ে থাকবে বলে মন্তব্য করেছেন এখানকার রাজনৈতিক বোদ্ধারা।

মানবতার ফেরিওয়ালা ছাত্রলীগ নেতা মইন