টেকনাফে মায়ের নিথরদেহ ঘরে রেখে কেঁদে কেঁদে পরিক্ষা দিল মেয়ে

গিয়াসউদ্দিন ভুলু, টেকনাফ
  • প্রকাশিত সময় : শনিবার, ২২ ফেব্রুয়ারী, ২০২০

টেকনাফে দাখিল পরীক্ষার্থী এক মেয়ে মায়ের মৃতদেহ বাড়িতে রেখে কেঁদে কেঁদে পরীক্ষায় অংশ নিলেন।
২২ ফেব্রুয়ারী (শনিবার) সকাল ১০টায় হ্নীলা রঙ্গীখালী দারুল উলুম ফাজিল মাদ্রাসা কেন্দ্রের এক শিক্ষার্থী মায়ের মৃতদেহ ঘরে রেখে পরিক্ষায় অংশ নিয়েছেন। এর আগে সকালে দাখিল পরিক্ষার্থী মরিয়ম আক্তার খানুর ‘মা’ নিজ বাড়িতে মৃত্যুর কোলে ঢলে পড়েন।
মরিয়ম হ্নীলা শাহ মজিদিয়া ইসলামিয়া আলিম মাদ্রাসার ছাত্রী এবং হ্নীলা পূর্ব সিকদার পাড়া মৃত হাজী নুরুল ইসলাম (প্রকাশ) নুরুর মেয়ে।



একদিকে মায়ের মৃতদেহ অপরদিকে নিজের জীবনের ভিত্তি গড়ার জন্য পরীক্ষায় অংশ-গ্রহণ। এই দুই চ্যালেঞ্জকে সামনে রেখে দাখিল পরিক্ষার্থী মরিয়ম পরিক্ষায় অংশ-গ্রহণ করার সিদ্বান্ত নেয়। সে মায়ের নিথরদেহ ঘরে রেখে কাঁদতে কাঁদতে যখন পরিক্ষা দিতে বের হয় তখন এলাকাবাসী ও আত্মীয় স্বজনের মাঝে চোঁখে মুখে নেমে আসে চরম হতাশার ছায়।
তথ্য সুত্রে আরো জানাযায়, পরীক্ষা শেষ না হওয়া পর্যন্ত পরিক্ষার্থী মরিয়ম কেঁদে কেঁদে অস্থির হয়ে পড়ে। এসময় তার পাশে থাকা শিক্ষার্থীরা তাকে শান্তনা দেয়। এদিকে তার এই দৃর্শ্য দেখে শিক্ষক-শিক্ষার্থী কেন্দ্র সচিব,হল সুপারসহ সকলে খুবেই মর্মাহত হয়ে পড়ে।
আজ আছরের নামাজের পর মরহুমার নামাজে জানাযা হ্নীলা শাহ মজিদিয়া মাদ্রাসা মাঠে অনুষ্টিত হবে এবং স্থানীয় কবরস্থানে দাফন করা হবে।

সংবাদটি আপনার ফেইসবুকে শেয়ার করুন...

এই ক্যাটাগরীর অন্যান্য সংবাদ :

কক্সবাজারে মরণব্যাধি করোনা ভাইরাসের কারনে বাজারে হঠাৎ করেই হ্যান্ড স্যানিটাইজারের সঙ্কট দেখা দিয়েছে। ফলে মানবিক বিবেচনায় নিজেদের টাকায় হ্যান্ড স্যানিটাইজার তৈরীর পর তা সাধারণ জনগনের মাঝে বিনামূল্যে বিতরণ করে বিরল দৃষ্টান্ত দেখিয়েছেন ছাত্রলীগের নেতাকর্মীরা। কক্সবাজার জেলা ছাত্রলীগের উপ-দপ্তর সম্পাদক ও ইন্টারন্যাশনাল ইউনিভার্সিটি ছাত্রলীগের সভাপতি মইন উদ্দিনের নেতৃত্বে একদল ছাত্রলীগ কর্মীর এমন মহতি উদ্যোগ সবার মাঝে প্রশংসা কুড়িয়েছে।
এর আগে করোনা ভাইরাসের সংক্রমণ থেকে বাঁচার জন্য সাধারণ মানুষের মাঝে সচেতনতা তৈরী সরূপ হাতকে জীবাণুমুক্ত রাখতে সারাদেশে হ্যান্ড স্যানিটাইজার তৈরী এবং বিতরণের নির্দেশ দেয় কেন্দ্রীয় ছাত্রলীগ। এরপর নিজেদের তত্বাবধানে হ্যান্ড স্যানিটাইজার তৈরির কাজ শুরু করে ছাত্রলীগ নেতাকর্মীরা।
রোববার বিকেল থেকে কক্সবাজারে হ্যান্ড স্যানিটাইজার তৈরির কাজে নামে ছাত্রলীগ। তারা ১ম ধাপে তিন শ’ বোতল স্যানিটাইজার তৈরি করে। পরবর্তীতে ছোট বড় আরো ২শ’ বোতল স্যানিটাইজার বানানো হয়। পর্যায়ক্রমে প্রয়োজন সাপেক্ষে আরো ৫শ’ স্যানিটাইজার এবং মাস্ক বানিয়ে সম্পন্ন মানবিক বিবেচনায় তা সাধারণ মানুষের মাঝে বিনামূল্যে বিতরণ করা হবে বলে জানিয়েছেন ছাত্রলীগ নেতা মইন। সমসাময়িক সঙ্কটময় মুহুর্তে ব্যতিক্রমী এমন মহৎ কাজের অন্যতম প্রধান উদ্যোক্তা জেলা ছাত্রলীগের উপ-দপ্তর সম্পাদক ও ইন্টারন্যাশনাল ইউনিভার্সিটি ছাত্রলীগের সভাপতি মইন উদ্দীন জানায়, ফার্মাসির কয়েকজন শিক্ষার্থীর সহযোগিতায় হ্যান্ড স্যানিটাইজার তৈরির উদ্যোগ নেন তারা। নিজেদের তৈরিকৃত এসব স্যানিটাইজার বিনামূল্যে সাধারণ মানুষের মাঝে বিতরণ করছেন। সবগুলো স্যানিটাইজার স্বাস্থ্যসম্মতভাবে তৈরী হচ্ছে বলেও জানান মইন উদ্দিন। এদিকে প্রাণঘাতি করোনা ভাইরাস নিয়ে দেশের এই সংকটময় মুহুর্তে একজন ছাত্রলীগ নেতার এমন উদারতা শুধু কক্সবাজার নয়, সারাদেশের ছাত্র রাজনীতির ইতিহাসে অনন্য উচ্চতার মাইল ফলক হয়ে থাকবে বলে মন্তব্য করেছেন এখানকার রাজনৈতিক বোদ্ধারা।

মানবতার ফেরিওয়ালা ছাত্রলীগ নেতা মইন