সার্ভেয়ারদের ব্যক্তিগত অপরাধের দায় জেলা প্রশাসন নেবেনা : ডিসি কামাল হোসেন

কক্সটিভি প্রতিবেদক♦
  • প্রকাশিত সময় : বুধবার, ১৯ ফেব্রুয়ারী, ২০২০

ঘুষের টাকা সহ র‍্যাব কর্তৃক ধৃত কক্সবাজার জেলা প্রশাসনের ভূমি হুকুম দখল শাখার সার্ভেয়ার ওয়াসিম যে অপরাধ করেছে, তা সার্ভেয়ার ওয়াসিমের ব্যক্তিগত দায় ও অপরাধ। কক্সবাজার জেলা প্রশাসন একটি প্রতিষ্ঠান। তার এ অপরাধের জন্য প্রতিষ্ঠান কোনভাবেই দায় নেবেনা।


কক্সবাজার জেলা প্রশাসনের ভূমি হুকুম দখল শাখার সার্ভেয়ার ওয়াসিমকে ঘুষের টাকা সহ র‍্যাব কর্তৃক ধৃত হওয়ার চাঞ্চল্যকর ঘটনার পর এ বিষয়ে প্রতিক্রিয়া জানতে চাইলে কক্সবাজার জেলা প্রশাসনের কর্ণধার জেলা প্রশাসক মোঃ কামাল হোসেন সিবিএন-কে একথা বলেন। তিনি আরো বলেন, সর্বোচ্চ সর্তকতা, জবাবদিহিতা ও স্বচ্ছতা রক্ষা করে ভূমি হুকুম দখল বিষয়ক ক্ষতিপূরণের চেক গুলো আনুষ্ঠানিক ভাবে চেক গ্রহীতার নিজের হাতেই প্রদান করা হয়। চেক বিতরণের সময় চেক গ্রহীতার কাছ থেকে প্রকাশ্যে জানতে চাওয়া হয়, প্রশাসনের যে কোন পর্যায়ে কারো সাথে কোন অনৈতিক লেনদেন করেছেন কিনা। এ পর্যায়ে চেক গ্রহীতার কোন অভিযোগ না থাকলে জেলা প্রশাসনের আর করার কিছু থাকেনা। এ অবস্থায় ক্ষতিপূরণের চেক গ্রহীতা স্বেচ্ছায় কারো সাথে কোন অনৈতিক লেনদেন করলে, সেটা চেক গ্রহীতা নিজের দায় দায়িত্বেই করেছে। জেলা প্রশাসনের কোন কর্মকর্তা-কর্মচারীর সাথে এ জাতীয় অনৈতিক লেনদেনের কোন সম্পর্ক নেই। বরং আইন অনুযায়ী ঘুষ দাতাও ঘুষ গ্রহীতার মতো অপরাধী।


জেলা প্রশাসক মোঃ কামাল হোসেন সিবিএন-কে আরো বলেন, আইনশৃংখলা রক্ষাকারী বাহিনীর দায়িত্বশীলেরা ঘুষের টাকা সহ র‍্যাব কর্তৃক ধৃত কক্সবাজার জেলা প্রশাসনের ভূমি হুকুম দখল শাখার সার্ভেয়ার ওয়াসিম, বাসা থেকে টাকা উদ্ধারকৃত সার্ভেয়ার ফেরদৌস ও সার্ভেয়ার ফরিদের বিষয়ে আন অফিসিয়ালি কক্সবাজার জেলা প্রশাসন থেকে জানতে চেয়েছিলো। তিনি দৃঢ়তার সাথে বলেন, অপরাধীদের বিরুদ্ধে আইনী প্রক্রিয়ায় ব্যবস্থা নিতে সুস্পষ্টভাবে তাদের বলে দেওয়া হয়েছে। মামলা হলে এবং লিখিত অভিযোগ পাওয়ার সাথে সাথেই আইন অনুযায়ী তাদের চাকুরী থেকে সাময়িক ভাবে বরখাস্ত, অন্যান্য আইনানুগ ব্যবস্থা নেওয়া হবে এবং উর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষকে অবহিত করা হবে। কক্সবাজার জেলা প্রশাসন এ বিষয়ে বিন্দু পরিমানও শৈথিল্য প্রদর্শন করবে না।

প্রসংগত, ঘুষের টাকা সহ র‍্যাব-১৫ কর্তৃক কক্সবাজার জেলা প্রশাসনের ভূমি হুকুম দখল শাখার সার্ভেয়ার ওয়াসিমকে শহরের বাহারছরা বাসা থেকে ৬ লাখ নগদ টাকা সহ ধৃত, একই শাখার সার্ভেয়ার ফেরদৌসের তারাবনিয়ার ছরা বাসা থেকে ২৭ লাখ ঘুষের অর্থ ও সার্ভেয়ার ফরিদের বাহারছরার বাসা থেকে ৬০ লাখ ৮০ হাজার ঘুষের টাকা উদ্ধার করা হয়। বুধবার ১৯ ফেব্রুয়ারী বিকেলে র‍্যাব-১৫ এর অধিনায়ক মেজর মেহেদী হাসানের নেতৃত্বে পৃথক ৩ টি অভিযানে প্রায় ৯৪ লক্ষ ঘুষের টাকা উদ্ধার ও সার্ভেয়ার ফেরদৌসকে হাতেনাতে আটক করা হয়। এ বিষয়ে জব্দ তালিকা তৈরী করে সার্ভেয়ার ফেরদৌসকে কক্সবাজার সদর মডেল থানায় সোপর্দ করার প্রস্তুতি চলছে বলে র‍্যাব-১৫ এর একজন দায়িত্বশীল কর্মকর্তা সিবিএন-কে জানিয়েছেন। বাসা থেকে ঘুষের টাকা উদ্ধারের পর সার্ভেয়ার ফেরদৌস ও সার্ভেয়ার ফরিদ পলাতক রয়েছে বলে সিবিএন-কে আইনশৃংখলা রক্ষাকারী বাহিনী নিশ্চিত করেছেন।

সংবাদটি আপনার ফেইসবুকে শেয়ার করুন...

এই ক্যাটাগরীর অন্যান্য সংবাদ :

কক্সবাজারে মরণব্যাধি করোনা ভাইরাসের কারনে বাজারে হঠাৎ করেই হ্যান্ড স্যানিটাইজারের সঙ্কট দেখা দিয়েছে। ফলে মানবিক বিবেচনায় নিজেদের টাকায় হ্যান্ড স্যানিটাইজার তৈরীর পর তা সাধারণ জনগনের মাঝে বিনামূল্যে বিতরণ করে বিরল দৃষ্টান্ত দেখিয়েছেন ছাত্রলীগের নেতাকর্মীরা। কক্সবাজার জেলা ছাত্রলীগের উপ-দপ্তর সম্পাদক ও ইন্টারন্যাশনাল ইউনিভার্সিটি ছাত্রলীগের সভাপতি মইন উদ্দিনের নেতৃত্বে একদল ছাত্রলীগ কর্মীর এমন মহতি উদ্যোগ সবার মাঝে প্রশংসা কুড়িয়েছে।
এর আগে করোনা ভাইরাসের সংক্রমণ থেকে বাঁচার জন্য সাধারণ মানুষের মাঝে সচেতনতা তৈরী সরূপ হাতকে জীবাণুমুক্ত রাখতে সারাদেশে হ্যান্ড স্যানিটাইজার তৈরী এবং বিতরণের নির্দেশ দেয় কেন্দ্রীয় ছাত্রলীগ। এরপর নিজেদের তত্বাবধানে হ্যান্ড স্যানিটাইজার তৈরির কাজ শুরু করে ছাত্রলীগ নেতাকর্মীরা।
রোববার বিকেল থেকে কক্সবাজারে হ্যান্ড স্যানিটাইজার তৈরির কাজে নামে ছাত্রলীগ। তারা ১ম ধাপে তিন শ’ বোতল স্যানিটাইজার তৈরি করে। পরবর্তীতে ছোট বড় আরো ২শ’ বোতল স্যানিটাইজার বানানো হয়। পর্যায়ক্রমে প্রয়োজন সাপেক্ষে আরো ৫শ’ স্যানিটাইজার এবং মাস্ক বানিয়ে সম্পন্ন মানবিক বিবেচনায় তা সাধারণ মানুষের মাঝে বিনামূল্যে বিতরণ করা হবে বলে জানিয়েছেন ছাত্রলীগ নেতা মইন। সমসাময়িক সঙ্কটময় মুহুর্তে ব্যতিক্রমী এমন মহৎ কাজের অন্যতম প্রধান উদ্যোক্তা জেলা ছাত্রলীগের উপ-দপ্তর সম্পাদক ও ইন্টারন্যাশনাল ইউনিভার্সিটি ছাত্রলীগের সভাপতি মইন উদ্দীন জানায়, ফার্মাসির কয়েকজন শিক্ষার্থীর সহযোগিতায় হ্যান্ড স্যানিটাইজার তৈরির উদ্যোগ নেন তারা। নিজেদের তৈরিকৃত এসব স্যানিটাইজার বিনামূল্যে সাধারণ মানুষের মাঝে বিতরণ করছেন। সবগুলো স্যানিটাইজার স্বাস্থ্যসম্মতভাবে তৈরী হচ্ছে বলেও জানান মইন উদ্দিন। এদিকে প্রাণঘাতি করোনা ভাইরাস নিয়ে দেশের এই সংকটময় মুহুর্তে একজন ছাত্রলীগ নেতার এমন উদারতা শুধু কক্সবাজার নয়, সারাদেশের ছাত্র রাজনীতির ইতিহাসে অনন্য উচ্চতার মাইল ফলক হয়ে থাকবে বলে মন্তব্য করেছেন এখানকার রাজনৈতিক বোদ্ধারা।

মানবতার ফেরিওয়ালা ছাত্রলীগ নেতা মইন